Home-loan-info

হোম লোনের ৭টি জানার বিষয়!

বাংলাদেশের ব্যাংকসমূহ বিভিন্ন সুবিধা দেওয়ার পাশাপাশি হোম লোনও দিয়ে থাকে। কীভাবে সহজে হোম লোন নেওয়া যায় সেটি জানতে হলে এই নিবন্ধটি পড়ে দেখতে পারেন।

 

প্রতিটি মানুষের জীবনেই কিছু না কিছু স্বপ্ন থাকে যা তারা প্রতিনিয়ত নিজেদের মধ্যে বুনতে থাকে। তন্মধ্যে নিজের একটি বাড়ি হোক সেটি কে না চায়! কিন্তু বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে দুর্মূল্যের বাজারে নিজের একটি বাড়ি গড়া কোন সহজ কথা নয়। কিন্তু এই কঠিন কাজকে সহজ করতে এবং সাধ্য অনুযায়ী নিজের স্বপ্ন বাস্তবায়নে বিভিন্ন ধরনের ব্যাংকের রয়েছে তাদের নিজেস্ব হোম লোনের প্যাকেজ। তবে বিভিন্ন কারণে অনেকের হোম লোনের আবেদন মঞ্জুর হয় না। আর তাই, হোম লোন পাওয়ার জন্য নিম্নোক্ত সাতটি বিষয় মাথায় রেখে যদি আবেদন করা যায় তাহলে সহজেই লোন পাওয়া যাবে। 

ঋণগ্রহীতার আয়

যেকোন ব্যাংকই ঋণ দেওয়ার পূর্বে ঋণগ্রহীতার মাসিক আয় সম্পর্কে জানতে চায়। এটি যাচাই করার মাধ্যমে ব্যাংকগুলো একজন ঋণগ্রহীতা নির্দিষ্ট মাসিক হারে ঋণ পরিশোধে সক্ষম কী না এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে থাকে। ঋণগ্রহীতার মাসিক আয়ের উপড় নির্ভর করে তার ঋণের পরিমাণ সর্বোচ্চ কত হতে পারে। তাই কোন ব্যাক্তি যদি হোম লোন নিতে চান সেক্ষেত্রে তাকে অবশ্যই নিজের আয়ের সঠিক হিসাব ব্যাংকে দিতে হবে।

 ঋণগ্রহীতার বয়স 

কোন ব্যাক্তি হোম লোন পাবেন কি না তা অনেক সময় নির্ভর করে তার বয়সের উপর। কারণ কারো বয়স যদি ৪০ এর বেশি হয়ে থাকে তখন ঋণ দেওয়ার পূর্বে ব্যাংকসমূহ চিন্তা করবে যে তিনি সঠিক সময়ে লোন পরিশোধ করতে পারবেন কী না। তাই হোম লোন নিতে চাইলে ১৮-৩৫ বছর বয়সের মধ্যে আবেদন করলে লোন পাওয়া সহজ হবে। 

ঋণগ্রহীতার পেশা

অনেক সময় ঋণগ্রহীতার পেশার উপরও লোন পাওয়া নির্ভর করে। কোন ব্যাক্তি যদি একজন সরকারি চাকরিজীবি হন বা কোন স্বনামধন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত থাকেন তবে তিনি সহজেই হোম লোন পেয়ে যাবেন। এছাড়াও কোন প্রতিষ্ঠানে দুই বছরের অধিক কেউ চাকরিরত থাকলে তিনিও লোন নিতে পারবেন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি ঋণগ্রহীতার বাড়তি কোন আয়ের উৎস থাকে এবং যদি তিনি এর কথা ঋণের জন্য আবেদন করার সময় উল্লেখ করে দেন তাহলে ঋণ পাওয়া অনেক সহজ হয়ে যায়। 

পূর্ব ঋণ সংক্রান্ত তথ্য বা ব্যাংক হিস্ট্রি

ব্যাংক কোন ব্যাক্তিকে হোম লোন দেওয়ার আগে সেই ব্যাক্তির পূর্বে অন্য কোন লোন নেওয়া আছে কি না বা তার অন্যান্য ব্যাংক হিস্ট্রিসমূহ খতিয়ে দেখবে। ক্রেডিট কার্ডেও যদি কোন কারণবশত বকেয়া থেকে থাকে তাহলে ঋণ পেতে অসুবিধা হবে। সেক্ষেত্রে সবধরনের বকেয়া মিটিয়ে লোনের জন্য আবেদন করলে লোন পাওয়া সহজ হবে।

পরিবারের অতিরিক্ত উপার্জনক্ষম ব্যাক্তি

যিনি লোন নিবেন তার পরিবারে যদি অন্যকোন উপার্জনক্ষম ব্যাক্তির আয়ের উৎস থেকে থাকে এবং হোম লোনের জন্য আবেদন করার সময় যদি তার কথা উল্লেখ করে দেওয়া যায় তবে হোম লোন সহজেই পাওয়া সম্ভব। কারণ একটি ব্যাংক তাকেই লোন দিবে যিনি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে লোন পরিশোধে সক্ষম হবেন।

অন্য কারো গ্যারান্টার না হওয়া 

বাড়ির জন্য লোন নেওয়ার আগে চিন্তা করতে হবে আপনি অন্য কারো লোনের গ্যারান্টার না তো। লোন নিতে ইচ্ছুক কোন ব্যাক্তি যদি অন্য কোন ঋণগ্রহীতার গ্যারান্টার হয়ে থাকেন তবে সেক্ষেত্রে ব্যাংক তাকে লোন দিবে না। তাই কারো যদি হোম লোন নেওয়ার চিন্তা থেকে থাকে তাহলে অন্য কারো গ্যারান্টার না হওয়াই ভালো। 

বিভিন্ন ব্যাংকের প্রোডাক্ট সম্পর্কে ধারণা থাকা

ভিন্ন ভিন্ন ব্যাংক হোম লোনের ক্ষেত্রে নিজেদের সুবিধামতো সময়সীমা এবং লোনের পরিমাণ নির্দিষ্ট করে বিভিন্ন হোম লোন প্যাকেজের ব্যাবস্থা করে থাকে। এই প্যাকেজ সমূহকেই ব্যাংকের ভাষায় প্রোডাক্ট বলে। কোন ব্যাংক হতে লোন নিলে ঋণগ্রহীতার জন্য সুবিধা হবে অর্থাৎ হোম লোনের কোন প্রোডাক্টটি তার জন্য সুবিধাজনক হবে হোম লোন নেওয়ার আগে এসব বিষয়ে ধারণা থাকলে এবং সুবিধাজনক ব্যাংকে গেলে লোন পেতে সহজ হবে।

বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি ব্যাংকেই হোম লোনের প্যাকেজ রয়েছে, যেগুলোতে ব্যাংকসমূহ নিজেদের সুবিধামতো সময় ও ঋণের পরিমাণ ধার্য করে দেয়। আর হোম লোন দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংকসমূহ একটি নির্দিষ্ট যাচাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লোন দিয়ে থাকে। তাই খুব সহজেই যদি আপনি আপনার বাড়ির জন্য লোন নিতে চান তাহলে উপরোক্ত সাতটি কথা মেনে কাজ করলে আপনার জন্য লোন পাওয়া সহজ হয়ে যাবে। 

এফএকিউ

  • বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক কী বাড়ি বানানোর জন্য হোম লোন দিয়ে থাকে? 

উত্তরঃ বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক হোম লোন দিয়ে থাকে না বরং তারা আপনার বাড়ি বানানোর জন্য বিনিয়োগ করে থাকে যাকে বলা হয় বাড়ির জন্য বিনিয়োগ বা ইনভেস্টমেন্ট ফর হাউজ। এই সুযোগ নেওয়ার মাধ্যমে আপনি নিজের জন্য একটি বাড়ি বানানো, কেনা বা রেডি ফ্ল্যাটও কিনতে পারবেন। 

 

Share this post

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on email
Share on print
en_USEnglish